DHAKA, Aug 19: Renowned folk singer Abdur Rahman Boyati died at Japan-Bangladesh Friendship Hospital in the city at around7.00am today (Monday). He was 74.

DHAKA, Aug 19: Renowned folk singer Abdur Rahman Boyati died at Japan-Bangladesh Friendship Hospital in the city at around

7.00am today (Monday). He was 74.

[divider_line type=”divider_shadow”]

[imageeffect image=”10099″]

একটি চাবি মাইরা দিলা

ছাইড়া
জনম ভরি চলিতেছে।
মন আমার দেহ ঘড়ি সন্ধান করি
কোন মিস্ত্ররী বানাইয়াছে।

থাকের একটা কেস বানাইয়া মেশিন দিলো তার ভিতর
ওরে রং বেরংয়ের বার্নিশ করা দেখতে ঘড়ি কি সুন্দর।

ঘড়ির তিন পাটে তে গড়ন সারা

এই বয়লারের মেশিনের গড়া।
তিনশ ষাটটি ইশকুররম মারা ষোলজন পাহারা আছে।

ঘড়ি হেয়ার স্প্রিং ফ্যাপসা কেচিং লিভার হইলো কলিজায়
আর ছয়টি বলে
আজব কলে দিবানিশি প্রেম খেলায়।

ঘড়ি তিন কাটা বার জুয়েলে মিনিট কাটা

হইলো দিলে
ঘন্টার কাটা হয় আক্কেলে
মনটারে সেকেন্ডে দিসে।

ঘড়ির কেসটা বত্রিশ চাকের, কলে কব্জা বেসুমার
দুইশো ছয়টা হাড়ের জোড়া, বাহাত্তর হাজারও তার।

ও মন, দেহঘড়ি চৌদ্দতলা, তার ভিতরে দশটি নালা,
একটা বন্ধ

নয়টা খোলা গোপনে এক তালা আছে।

ঘড়ি দেখতে যদি হয় বাসনা
চলে যান ঘড়ির কাছে,
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে ঘড়ির ভিতর লুকাইছে,
ঘড়ির ভিতর লুকাইছে।

পর্দারও সত্তর হাজারে
তার ভিতলে লড়ে চড়ে
জ্ঞান নয়ন ফুটলে

পরে দেখতে পারবেন চোখের কাছে।

ওস্তাদ আলাউদ্দিনে ভেবে বলছেন,
ওরে আমার মনবোকা,
বাউল রহমান মিয়ার কর্মদোষে হইল না ঘড়ির দেখা।

আমি যদি ঘড়ি চিনতে পারতাম,
ঘড়ির জুয়েল বদলাইতাম,
ঘড়ির জুয়েল

বদলাইবো
কেমন যাই মিস্ত্ররীর কাছে?

মন আমার দেহঘড়ি
সন্ধান করি, কোন মিস্ত্রী বানাইছে।
মন আমার দেহঘড়ি
একটি চাবি মাইরা দিলা ছাইড়া
জনম ভরি চলিতেছে।
মন আমার দেহ ঘড়ি সন্ধান করি
কোন মিস্ত্ররী বানাইয়াছে।

আব্দুর রহমান বয়াতি আর নেই
বাংলাদেশের প্রখ্যাত বাউল সঙ্গীতশিল্পী আব্দুর রহমান বয়াতি আর নেই। সোমবার সকাল সোয়া

আটটার দিকে রাজধানীর জাপান-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজেউন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। তিনি স্ত্রী ও তিন ছেলেসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন, গুণগ্রাহী, ভক্ত-শ্রোতা-শিষ্য

রেখে গেছেন।
হাসপাতাল সূত্র জানায়, গত ১৮ জুলাই শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে হাসপাতালে ভর্তি করা হয় আব্দুর রহমান বয়াতিকে। সেখানে তিনি আইসিইউ হেড অধ্যাপক শফিকুর রহমানের অধীনে চিকিৎসাধীন ছিলেন। অনেক দিন ধরে তিনি উচ্চ রক্তচাপ, কিডনি

ও ফুসফুসের সমস্যাসহ বার্ধক্যজনিত নানা সমস্যায় ভুগছিলেন। তাকে কৃত্রিম শ্বাস-প্রশ্বাসের মাধ্যমে বাঁচিয়ে রাখা হয়েছিল। তিনি সাত বছর ধরে এই হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন।

১৯৩৯ সালে ঢাকার সূত্রাপুর থানার দয়াগঞ্জে জন্মগ্রহণ

করেন আবদুর রহমান বয়াতি। অসংখ্য জনপ্রিয় লোকগান উপহার দিয়েছেন এই বাউলশিল্পী, গীতিকার, সুরকার ও সঙ্গীত পরিচালক। একক গানের বহুসংখ্যক অ্যালবামের পাশাপাশি তিনটি মিশ্র অ্যালবামেও গেয়েছেন তিনি। আমেরিকার সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ বুশ সিনিয়রের

আমন্ত্রণে একবার হোয়াইট হাউসে আয়োজিত জাঁকালো এক অনুষ্ঠানেও গান গেয়ে সবাইকে মুগ্ধ করেছিলেন বয়াতি।

প্রায় চার যুগ ধরে মঞ্চ মাতিয়ে রাখা এ শিল্পী ‘মরণের কথা কেন স্মরণ করো না’, ‘মা আমেনার কোলে

ফুটল ফুল’, ‘দিন গেলে আর দিন পাবি না’, ‘ঘুড্ডি হয় তিনতলা’, ‘হাতের মাঝে ভাঙল হাঁড়ি’, ‘পিরিতে কইরাছে কাঙালি’, ‘একদিন চিঠি দিয়ে, ‘আমার মাটির ঘরে’, ‘এত সুন্দর রঙমহল ঘর’, ‘আমি মরলে কেন’, ‘আমার এত সাধের রংমহল ঘর

ইঁদুরে কেটে বিনাশ করতেছে’, আমার মাটির ঘরে ইঁদুর ঢুকেছে’, ‘হাঁটের মাঝে ভাঙ্গল হাঁড়ি’-র মত জনপ্রিয় চার শতাধিক গানের রচয়িতা।

তার মৃত্যুতে সাংস্কৃতিক অঙ্গনে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

DHAKA, Aug 19: Renowned folk singer Abdur Rahman Boyati died at Japan-Bangladesh Friendship Hospital

in the city at around 7.00am today (Monday). He was 74.

Earlier, he was admitted to the hospital in a critical condition of some neurological and

urological complications on Sunday night, family sources said.

He was born in 1939 at Dayaganj under Sutrapur Thana in Dhaka.

The folk maestro

had been sick since 2003. He underwent surgery in Japan-Bangladesh Friendship Hospital on 19 June this year.

From a very early age, he came to the

traditional music arena. Eventually, he formed a group in 1982 which is customarily known as Abdur Rahman’s group. He has over 500 albums comprising of songs

of almost all folk genres in his rich music career.

This eminent folk singer and lyricist performed almost everywhere in the country, as well as in more

than 40 countries across the world.

To note, he even sang at the White House in 1990, being invited by President George Bush Sr. He was a recipient of

six national awards including the Presidency Award of Bangladesh.