বয়স মাত্র ১১ ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী। এখনো ভাল করে বয়ঃসন্ধিকালই কাটেনি। অথচ এমন একটা সময়ে তাকে ভোগ করতে হল পশুর চেয়েও বর্বরোচিত অত্যাচার।

টঙ্গীর ষষ্ঠ শ্রেণীর হিন্দু ধর্মাবলম্বী এক

মেধাবী ছাত্রী গত ৬ এপ্রিল স্কুল থেকে ফেরার পথে অপহৃত হয়। তারপর অপহরণকারী দুর্বৃত্তরা তাকে কলেমা পড়িয়ে ইসলাম ধর্মে ধর্মান্তরিত করে। তাতক্ষণিকভাবে পাতানো বিয়ে দেয়া হয় অপহরণকারীদের মধ্যে মানিক নামে একজনের সাথে। তারপর ৫৫ দিন ধরে তার উপর

চলে ধর্ষণের মতো পাশবিক অত্যাচার। অবশেষে ৫৫ দিন পর কক্সবাজারের চকোরিয়া থেকে উদ্ধার করা হয় এই কিশোরীকে। তবে পুলিশ অপহরণকারীদের কাউকে ধরতে পারেনি।

পুলিশ জানিয়েছে, অপহরণকারীরা চকরিয়া ও মহেশখালী উপজেলার ছয় মাদক

ব্যবসায়ীর একটি চক্র। কিশোরীকে উদ্ধার করার সময় টঙ্গী থানা পুলিশের সঙ্গে ছাত্রীটির মা-বাবাও ছিলেন। ধর্ষিত কিশোরীটি পঞ্চম শ্রেণীতে টঙ্গীর একটি প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় এ প্লাস পেয়ে সেখানকারই একটি বিদ্যালয়ে ষষ্ঠ শ্রেণীতে ভর্তি হয় বলে জানিয়েছে তার বাবা

মা।

 

অপরাজিতা/শুভ্রা.

Sharing is caring!